দেশজুড়ে CBI অফিসের সামনে বিক্ষোভ কংগ্রেসের

আইডিয়া টুডে নিউজ, দিল্লি, ২৬ অক্টোবর ঃ   CBI ডিরেক্টর অলোক ভার্মাকে ছুটিতে পাঠানোর বিরোধিতায় আজ দেশজুড়ে বিক্ষোভ দেখাচ্ছে কংগ্রেস। দিল্লিতে CBI হেডকোয়ার্টারের সামনেও বিক্ষোভ দেখানো হবে। সেখানে যোগ দেবে তৃণমূলও। ইতিমধ্যেই দিল্লির দয়াল সিং কলেজের সামনে থেকে বিক্ষোভ মিছিলে যোগ দিয়েছেন রাহুল গান্ধি।
গতকাল টুইটে রাহুল গান্ধি লেখেন, “CBI প্রধানকে সরানোর মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী রাফাল স্ক্যামের তদন্ত প্রভাবিত করার চেষ্টা করেছেন। এই ঘটনার প্রতিবাদে দিল্লিতে CBI হেডকায়ার্টারের সামনে বিক্ষোভে আমি প্রতিনিধিত্ব করব।”

এবিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং বলেন, “বর্তমানে জনগণের হয়ে লড়াই করার মতো কোনও বিষয়ে কংগ্রেসের কাছে নই। তাই তারা গুরুত্বহীন বিষয়ে আন্দোলনের চেষ্টা করছে। আমরা এবিষয়ে তদন্তের রিপোর্ট আসা পর্য অপেক্ষা করব।”
কুরেশি মামলার তদন্তভার হাতে নেয় CBI। সেখান থেকেই আস্থানা-ভার্মা দ্বন্দ্বের শুরু। CBI ডিরেক্টর অলোক ভার্মা। সেকেন্ড ইন কমান্ড রাকেশ আস্থানা। দু’জনেই প্রভাবশালী। আস্থানা আবার গুজরাত ক্যাডার। আবার ২০১৯ সালের জানুয়ারিতেই অবসর নেওয়ার কথা ভার্মার। স্বাভাবিকভাবে পরবর্তী ডিরেক্টর হতেন আস্থানা। CBI-এর আনাচে-কানাচে খবর ছড়িয়েছে, আস্থানা নাকি ভার্মার ‘আস্থাভাজন’ নন। তাই, তাঁকে চাইতেন না ভার্মা। এরপরই সামনে আসে কুরেশি ইশু। ‘যুদ্ধ’ শুরু হয় CBI-র অন্দরে। আস্থানার বিরুদ্ধে FIR দায়ের করেন ভার্মা। অভিযোগ করেন, কুরেশির বিরুদ্ধে দুর্নীতি মামলা মিটিয়ে নেওয়ার জন্য ব্যবসায়ী সানার থেকে ৩ কোটি টাকা নিয়েছেন আস্থানা। পালটা অভিযোগ আনেন আস্থানাও। তাঁর অভিযোগ, সানার থেকে ২ কোটি টাকা নিয়ে দুর্নীতি মামলা মেটাতে চেয়েছিলেন ভার্মাই। এরপর আস্থানা ঘনিষ্ঠ এক অফিসারকেও গ্রেপ্তার করা হয়। বাধ্য হয়ে গোটা বিষয়ে হস্তক্ষেপ করে কেন্দ্রীয় সরকার। মঙ্গলবার গভীররাতে সরিয়ে দেওয়া হয় ভার্মা ও আস্থানাকে। অন্তর্বর্তীকালীন ডিরেক্টর হিসেবে যোগ দেন নাগেশ্বর রাও।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *