পুকুর থেকে মিলও মিসাইল বোমা আতঙ্ক নদিয়ায়

আইডিয়া টুডে নিউজ,নদিয়া ১৭ এপ্রিলঃ  নদিয়ার হাঁসখালি থানার ছোটচুপুরিয়া গ্রাম প্রায় আড়াই কাঠা একটি পুরনো পুকুর সংস্কারের কাজ চলছিল। সংস্কারের কাজের সময় শনিবার জেসিবি মেশিনের চালক সোম মল্লিকের গাড়িতে একটা শক্ত কিছু বাধে। অথচ কাউকে কিছু না বলে সে পরদিন ফের মাটি কাটতে থাকে। রবিবার বিকেলে মাটি কাটার সময় মেশিনে বাধে দু’টি সিলিন্ডার। পুলিশ সুত্রে খবর, গুপ্তধন মনে করে কাদামাখা সিলিন্ডার দু’টি বাড়ি নিয়ে যায় মেশিন চালক। বাড়িতে গিয়ে মাটি ধুয়ে ফেলতেই তার কাছে সিলিন্ডার দু’টি অন্য জাতীয় কিছু বলে সন্দেহ হয়। ততক্ষণে বিষয়টি জানাজানি হয়ে যায় গ্রামের লোকজনের মধ্যেও। খবর যায় হাঁসখালি থানার পুলিশের কাছে। পুলিশ গিয়ে মিসাইল বোমার মতো দেখতে খুবই সাবধানে তা উদ্ধার করে নিয়ে আসে থানায়। এরপর অতি সাবধানে মাটি চাপা দিয়ে রাখা হয় বোমা দু’টি। সেগুলি আদৌ এখনও সক্রিয় কী না, তা নিয়ে পুলিশ কর্মীদের মধ্যেও রয়েছে আতঙ্ক। কখন কী হয়, তা নিয়ে সংশয় কাটছে না পুলিশকর্মীদের।

যে পুকুরের মাটি কাটতে গিয়ে বোমা দু’টি মিলেছে, সেই পুকুরটি বোমাপুকুর নামেই খ্যাত। তাই সেই পুকুরে এমন বোমা মেলায় প্রবল আতঙ্ক ছড়িয়েছে মানুষের মধ্যে। পুকুর সংস্কারের জন্য সোমবার ফের মাটি খোঁড়া শুরু হলে তড়িঘড়ি তা বন্ধ করে দেওয়া হয়। গ্রামের মানুষের ধারণা, বোমা দু’টি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়ের হতে পারে। তবে তা এখনই নিশ্চিত নয়। তাঁদের আরও ধারণা ওই পুকুরে আরও এমন বোমা থাকতে পারে। জেসিবি মেশিন চালক সোম মল্লিকের বক্তব্য, “মেশিন চালানোর সময় শক্ত কিছু একটা বাধে। কী জিনিস বুঝতে না পেরে বাড়ি নিয়ে যাই। পরে সিলিন্ডার জাতীয় জিনিস দেখে ভয় লাগে। পুলিশ ওই দু’টি বোমা নিয়ে গিয়েছে।” জমির মালিক আনিসুর রহমান জানান, “শুনলাম, ওগুলি বোমা। তবে এত বড় বোমা হয় ধারণা ছিল না।”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *